এমসি কলেজে ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মুখোমুখি , ছাত্রাবাস বন্ধ

সুরমা ভিউ–সিলেটের এমসি কলেজে গ্রুপিংয়ের কারণে দুই পক্ষের মুখোমুখি অবস্থানে সংঘর্ষের আশঙ্কায় ছাত্রাবাস বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। মঙ্গলবার (৬ আগস্ট) সকাল সাড়ে ১১ টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের ছাত্রাবাস খালি করতে বলা হয়েছে।

এরআগে ছাত্রাবাসে থাকা শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে অধ্যক্ষ প্রফেসর নিতাই চন্দ্র চন্দ সাক্ষরিত এক নোটিশে অনির্দিষ্টকালের জন্য ছাত্রাবাসটি বন্ধের ঘোষণা দেন।

নোটিশে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১ টার ভেতর ছাত্রাবাসে থাকা সকল শিক্ষার্থীদের হোস্টেল ত্যাগ করার বিষয়ে বলা হয়। এবং পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত ছাত্রাবাস বন্ধ থাকবে বলেও জানানো হয়।

জানা যায়, গত দুই দিন যাবত আবাসিক ছাত্র এবং বহিরাগতদের মধ্যে টানটান উত্তেজনা চলছে দিনে এবং রাতে একাধিক বার সংঘর্ষের পরিস্থিতি তৈরী হয়। বহিরাগতরা জড়ো হয়ে ছাত্রাবাসে আক্রমন করার প্রস্তুতি নিলে ছাত্রাবাসের ছাত্ররাও প্রতিরোধের পাল্টা প্রস্তুতি নেয়। গত ৪ আগষ্ট অর্থনীতি বিভাগের ছাত্র আসিফকে পরীক্ষার হল থেকে ধরে এনে ,সাইফুর, রাহীর নেত্রীত্বে ১০-১২ জন বহিরাগত এসে মারধর করে। আসিফ মাথায় ছুরির দ্বারা মারাত্বক আঘাত প্রাপ্ত হয়। গত ৫ আগষ্ট রাতে শ্রীকান্ত আবাসিক হলের ছাত্র অপু তালুকদারকে আরামবাগ এলাকায় বাহিরাগতরা আক্রমন করলে পরিস্থিতি আরো অবনতি হয়।

উভয় পক্ষ অস্র নিয়ে অবস্থান নেয়। রাতে ছাত্রাবাস বন্ধের সিদ্ধানত নেয় কর্তৃপক্ষ। মূলত ছাত্রাবাসে অবৈধ ভাবে অবস্থান করাদের পক্ষ নিয়েই বহিরাগতরা সংঘাতে জড়ায়। আংশিক ছাত্র- বহিরাগত অংশের নেত্রীত্বে আছে হোসাইন আহমদ, নজমুল ইসলাম এবং আবাসিক ছাত্রদের পক্ষে নেত্রীত্বে আছে কাওছার আহমদ কানন, রুবায়েল আহমদ শাকিল।

২নং ব্লক এর অফিস দখল করে আছে হোসাইন আহমদ (ছাত্রত্ব শেষ), ৫নং ব্লকে শিক্ষক কোয়ার্টার দখল করে আছে সুশান্ত দাশ(চাকুরীজীবী) , দেলোয়ার হোসাইন রাহি (মাষ্টার্স শেষ), সাইফুর রহমান , সাদিকুর রহমান (ছাত্রত্ব নাই), ৫নং ব্লকের অফিস কক্ষ দখল করে আছে রুবায়েল আহমদ। নতুন ভবনে অবৈধ ভাবে সিট দখল করে আছে জাবের,জুবায়ের,আব্দুর রহমান, সেলিম আহমদ, মাছুম আহমদ মাহী (ছাত্রত্ব নাই), তাজিম এছাড়াও আরো দশ পনেরোজন হবে। টাকা দিয়েও সিট বুঝে পায়নি এমন শিক্ষার্থীর সংখ্যা কম নয়।

এমসি কলেজের অধ্যক্ষ নিতাই চন্দ্র চন্দ বলেন, ছাত্রাবাসে কিছুটা অস্থিরতা বিরাজ করায়, সেখানে থাকা সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে আপাতত ছাত্রাবাসটি বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। পরবর্তীতে কোন সিদ্ধান্ত হলে বিষয়গুলো জানিয়ে দেওয়া হবে।

উল্লেখ্য,এমসি কলেজের সঞ্জয় চৌধুরী অনুসারী কাকন ও শাকিল এবং সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ নেতা নাজমুল হোসাইনের সমর্থকদের মধ্যে বহিরাগত ও বৈধ-অবৈধ বিষয়ে এসব সংঘর্ষের ঘটনা হয়।