অমিত হাসান নেই,শাকিবও নেই

২০১৭ সালের ৫ মে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনের মাধ্যমে সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ক্ষমতায় আসেন মিশা সওদাগর ও জায়েদ খান। আসন্ন ২৫ অক্টোবর নির্বাচনেও মিশা-জায়েদ এক হয়ে প্যানেল দিয়েছেন। তবে এবারের প্যানেলে নেই আগেরবারের সত্তর ভাগ সদস্য।

জানা গেছে, সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নানা বিতর্কিত আচরণে বিরক্ত হয়ে তারা এবার মিশা-জায়েদের প্যানেল থেকে সরে গেছেন। অন্যদিকে সভাপতি প্রার্থী হিসেবে মৌসুমী ও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী হিসেবে ইলিয়াস কোবরা মনোনয়ন কিনেছেন।

এদিকে নির্বাচনে অংশ নেয়ার কথা থাকলেও এবার অংশ নিচ্ছেন না সাবেক সাধারণ সম্পাদক চিত্রনায়ক অমিত হাসান। নির্বাচনে না দাড়ানোর প্রসঙ্গে তিনি বিডি২৪লাইভকে বলেন, আমি নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করতাম কিন্তু কয়েকটি কারণে করছি না। শাকিব খান এবার নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে না যার কারণে আমি সরে এসেছি। যেহেতু আমরা বিতগ সময় সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক ছিলাম। এছাড়াও আমার পারিবারিক বেশ কিছু কাজ নিয়ে ব্যস্ত হয়ে গেছি। সব মিলিয়ে এবার নির্বাচনে দাড়াতে পারছি না।

তিনি আরও বলেন, শিল্পী সমিতির পরিবেশ ভালো না। নির্বাচন নিয়ে রাজনীতি আর মানুষে ভুলানো কথাবার্তা চলছে সেখানে। আমি শুনেছি রিয়াজকে নাকি অপমান করা হয়েছে। যেখানে শিল্পীরা মূল্য পাচ্ছে না সেখানে উন্নয়ন আশা করা যায় না।

এর আগে, গতকাল শুক্রবার বিদায়ী শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর ও সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান প্যানেলের কমিটির এই সভায় কথা বলতে না দেওয়ার অভিযোগ তুলে বের হয়ে যান বর্তমান কমিটির সহ-সভাপতি চিত্রনায়ক রিয়াজ।

জানা যায়, শিল্পী সমিতির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক এফডিসির জহির রায়হান কালার ল্যাব চত্বরে শুক্রবার এজিএমের ডাক দেন। কিন্তু কমিটির চল্লিশ ভাগ সদস্যও এই এজিএমে উপস্থিত ছিলেন না।