ছাতকে সংঘর্ষে ইয়াকুব নিহতের ঘটনায় দু’শ জন‌কে আসামী মামলা

সেজান আলী পরাগ||

ছাতকের গোবিন্দগঞ্জে দু’গ্রামবাসীর সংঘর্ষের ঘটনায় প্রায় দু’শতাদিক লোকজনকে আসামী করে থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

 

সংঘর্ষে নিহত ইয়াকুব আলী নিহত হওয়ার ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার রাতে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহতের বড় ভাই আওলাদ আলী।

 

নিহত ইয়াকুব আলী উপজেলার ছৈলা আফজলাবাদ ইউনিয়নের শিবনগর গ্রামের খুরশেদ আলীর ছেলে।

 

মামলায় ৪২ জনের নাম উলেখসহ অজ্ঞাতনামা আরও দেড় শতাধিক আসামী করে এ মামলা দায়ের করা হয়।

 

সংঘর্ষের পর গত বুধবার পুলিশের হাতে আটক হওয়া ৪জনকে ইয়াকুব আলী হত্যা মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ।

 

উলেখ্য, গত বুধবার রাতে গোবিন্দগঞ্জে তুচ্ছ ঘটনার জের ধরে দু’ গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় ইয়াকুব আলী নামে এক যুবক নিহত ও উভয় পক্ষের অন্তত শতাধিক লোকজন আহত হয়।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে থানা পুলিশ ১শ’২০ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ও টিআরসেল নিক্ষেপ করে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে উপজেলা প্রশাসন বুধবার সকাল ৮টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা পর্যন্ত গোবিন্দগঞ্জ এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করে।

এদিকে, থানায় হত্যা মামলা দায়েরের পর দিঘলী গ্রামের অধিকাংশ বাড়ী-ঘর এখন পূরুষ শুন্য। গ্রেফতার আতংকে অনেকেই বসত-ঘর ছেড়ে পালিয়ে গেছেন।

গত বৃহস্পতিবার বিকেলে সুনামগঞ্জ পুলিশ সুপার মো.মিজানুর রহমান গোবিন্দগঞ্জ এলাকায় সংঘর্ষেরস্থল পরিদর্শন করে স্থানীয় লোকজনের সাথে কথা বলেছেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা থানার উপ-পরিদর্শক হাবিবুর রহমান (পিপিএম) বলেন, এ হত্যা মামলায় তদন্তের সার্থে আসামীদের নাম এই মুহুর্তে প্রকাশ করা যাচ্ছে না। মামলার এজহারভূক্ত আসামী গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।