ছাতকে গ্রাম্য বিরোধকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৪০

ছাতক প্রতিনিধি।।  ছাতকে  গ্রাম্য বিরোধকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে অন্তত ৪০ ব্যক্তি আহত হয়েছে। গুরুতর আহত ১৪ জনকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শনিবার দুপুরে উপজেলার চরমহল্লা ইউডিনয়নের কালিয়ারচর গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সম্প্রতি কালিয়ারচর ও পার্শ্ববর্তী চরবাড়–কা গ্রামবাসীর মধ্যে এক সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। ওই সংঘর্ষে গ্রামবাসীর পক্ষ নিয়ে সংঘর্ষে জড়িত না হয়ে নিরব ভুমিকা পালন করে কালিয়ারচর গ্রামের নুরুল হকের পক্ষদ্বয়। এ নিয়ে নুরুল হক পক্ষের সাথে গ্রামের লোকজনের মনমালিন্য ও বিরোধ চলে আসছিল। শুক্রবার রাতে এ নিয়ে গ্রামের শফিক আহমদের সাথে নুরুল হকের বাক-বিতন্ডা ও হাতা-হাতির ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার জের ধরে শনিবার দুপুরে উভয় পক্ষের লোকজন এক রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। প্রায় ঘন্টাব্যাপী সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ৪০ ব্যক্তি আহত হয়। গুরুতর আহত দিলোয়ার হোসেন (৩৫), সৈয়দুল হক (৩৫), মনির হোসেন (৫০), শফিকুল ইসলাম (৩৫), রেদওয়ান আহমদ (৪০), নিজাম উদ্দিন (৪৫), মজম্মিল আলী (৫৫), রশিদ আলী (৬০), সামছুল হক (৫০), সাজ্জাদুল হক (৪০), অজুদ মিয়া (৫৫), বিলাল (১৭), রিয়াদ (১৮) ও জুয়েল মিয়া (২৫) কে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আলিম উদ্দিন (১৬), বাদশা মিয়া (১৭), আব্দুল কদ্দুছ (৫৫), আব্দুল মতিন (৪০), তারেক আহমদ (২৫), ময়না মিয়া (৪৫), এমদাদুল হক (৩৫), আব্দুল জলিল (৩৫), রুহেল আহমদ (২৫), আব্দুস ছালাম (৫০), ফয়জলুল আলী (১৭), আব্দুল জব্বার (৪০), নুর উদ্দিন (২২), আব্দুর রউফ (৪০), আব্দুল মতিন (৫৫), সমিরুল হক (৪০), খালেদ মিয়া (২৩), রুবেল মিয়া (২৪), ইমন আহমদ (১৮), ফয়জুর রহমান (৫৫) সহ অন্য আহতদের স্থানীয় কৈতক হাসপাতালে ভর্তি ও চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। খবর পেয়ে জাউয়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এসআই শফিকুল ইসলামের নেতৃত্বে এক দল পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রনে আনেন।