জগন্নাথপুরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে মিথ্যা মামলা!

জগন্নাথপুর প্রতিনিধি।।

প্রতিপক্ষকে ফাসানো, কিংবা জমি নিয়ে বিরোধের জের কখনও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে বেড়েই চলছে একের পর এক হত্যাকান্ড অথবা মিথ্যা মামলা। এরই ধারাবাহিকতায় পৌরশহরের পশ্চিম ভবানীপুরে পানিতে পড়ে মারা যাওয়ার ছয়মাস পর প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে করা হয়েছে মামলা। চলতি বছরে খুনের ঘটনা ঘটেছে ৫ টি। একের পর এক ঘটনায় হতাশ ও শঙ্কায় স্থানীয়রা।

প্রবাসী অধ্যাসিত এলাকা জগন্নাথপুর। ৮টি ইউনিয়ন ও একটি পৌর সভা নিয়ে এই উপজেলা। এখানে বৈষ্ণব কবি রাধারমণ দত্তের জন্মস্থান। কিন্তুু গেলো কয়েক মাসে একের পর হত্যাকান্ডে দেশব্যাপী বেশ আলোচিত হয়েছে। জমি নিয়ে বিরোধের জের কখনও আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে বেড়েই চলছে এক নৃশংস হত্যাকান্ড। ২০১৯ সালে উপজেলায় ৫টির অধিক হত্যা কান্ডের ঘটনা ঘটেছে।

এদিকে, গত ১/৬/১৯ রমজান মাসে পানিতে পড়ে মারা যাওয়া শিশুকে হত্যা মামলা করেছে জগন্নাথপুর উপজেলার পশ্চিম ভবানীপুর গ্রামের আমিনা বেগম। এ মামলায় ১৩জনকে আসামী এবং অজ্ঞাত ৮-১০ আছে বলে মামলায় উল্লেখ করে সুনামগনজ আদালতে ১০৯ / ২০১৯ সি আর মামলা দায়ের করেন । অথচ. এই মামলার দুই নং আসামী রনি মিয়া গত ৭/১২/২০১৮ সাল থেকেই তিনি গ্রিসে থাকেন।

প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে পানিতে পরে যাওয়া মারা যাওয়া শিশুকে নিয়ে হত্যা মামলা করেছেন। এই মিথ্যা মামলা ও বিভিন্ন সময় যে হত্যাকান্ড ঘঠে এগুলোর সুষ্ঠু তদন্তের দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়বাসিন্দারা।

৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলার দ্বিপক গোপ জানান, আমরা কাছে এই মামলাটি মিথ্যা বলে মনে হচ্ছে।   কারণ বিদেশে থেকেও মামলার আসামী! যদি ঘটনাটি সত্য হতো তাহলে বিদেশে থেকে মামলার আসামী হতো না।

পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান মিজান জানিয়েছেন প্রতিটি ঘটনার রহস্য উদঘাটন করে একটি সুষ্টু তদন্ত ও নিভুল যোগ্য একটি চার্জশিট আদালতে প্ররেণ করা হবে।