কানাইঘাটে সুরমা ডাইকের ভাঙ্গন পরিদর্শনে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারী প্রকৌশলী

প্রকাশিত: ১২:১৩ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২০, ২০১৯

কানাইঘাটে সুরমা ডাইকের ভাঙ্গন পরিদর্শনে পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারী প্রকৌশলী

কানাইঘাট প্রতিনিধি।।  কানাইঘাট পৌরসভাস্থ দারুল উলাম মাদ্রাসার সামনে সুরমা নদীর ডাইকে ভয়াবহ ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। দেশের অন্যান্য নদীর মত শুকনো এ মৌসুমে প্রতি বছর সুরমা নদীতে পানি কমতে থাকে। তারই ধারাবাহিকতায় এবারও পানি কমার সাথে সাথে গত শুক্রবার থেকে এখানে ভয়াবহ ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। নদীর প্রতিটি ডাইক গুরুত্বপুর্ণ হলেও বিশেষ করে কানাইঘাট দক্ষিণ বাজার থেকে শুরু করে কানাইঘাট সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় পর্যন্ত সুরমা ডাইকের এ প্রতিরক্ষা বাঁধটি অধিক গুরুত্বপুর্ণ। কারন এ ডাইকটি আদিকাল থেকে জনগুরুত্বপূর্ণ রাস্তা হিসাবে ব্যবহার হয়ে আসছে। তাই মাদ্রাসার সামনে হঠাৎ এ ভাঙ্গন দেখা দেওয়ায় পাশের দারুল উলূম মাদ্রাসার শিক্ষক ছাত্র সহ সাধারণ মানুষের মাঝে অতংক বিরাজ করছে। দ্রুত এ ভাঙ্গন রোধের ব্যবস্থা না নিলে জনগুরুত্বপুর্ণ এ রাস্তাটি বিলীন হয়ে যেতে পারে। তবে ইতিমধ্যে উপজেলা প্রকৌশলী অফিসের কর্মকর্তারা ভাঙ্গনটি ঘুরে দেখেছেন বলে জানা গেছে। গতকাল বুধবার সকাল ১১টায় সিলেট পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মোঃ রুবেল সরকার ভাঙ্গনটি পারিদর্শন করেছেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ শাকির। সরেজমিনে দেখা যায় ডাইকের পশ্চিম পার্শ্ব হতে মাটির নিচ হয়ে জলাবদ্ধতার পানি সুচে সুরমা নদীতে গড়াচ্ছে। অনেকের ধারনা প্রতিরক্ষা বাধেঁর পশ্চিম পাশে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হওয়ায় এ ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। তাই সুরমা নদীর কবল থেকে এই এলাকা রক্ষা করতে হলে এখানকার বিশাল জলাবদ্ধতা দূর করতে হবে। সেজন্য পৌরবাসী মেয়র নিজাম উদ্দিনের কাছে ধরপড়ী নদী খননের জোর দাবী জানিয়েছেন। তারা উল্লেখ করে বলেন পৃথিবী সৃষ্টির পর থেকে এখানকার জলাবদ্ধতার পানি ধরপড়ী নদী হয়ে হাওড়ে চলে যেত। বর্তমানে ধরপড়ী নদীটি প্রভাবশালীদের দখলে চলে যাওয়ায় পৌর শহরের সমুস্ত বাসা-বাড়ির পানি জমা হয়ে এখানে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। মাত্র কয়েক বছর পূর্বে যেখানে ছিল ফসলী জমি মাঠ, আজ সে স্থানটি দেখলে যে কেউ বলে উঠবে এটি যেন কোন বড় জলমহাল।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সুরমাভিউ সর্বশেষ সংবাদ