|

বন্ধু তিন দিন তোর বাড়িত গেলাম…

বাংলাদেশের ইতিহাসে বিশেষ করে চলচ্চিত্রে গানের সুরকার হিসেবে কিংবদন্তি বলা হয় আলাউদ্দিন আলীকে। কালজয়ী বাংলা গানের অসংখ্য গানের সুরস্রষ্ঠা তিনি। ‘কেউ কোনো দিন আমারে তো কথা দিল না’, ‘আছেন আমার মোক্তার, আছেন আমার ব্যারিস্টার’, ‘এমনও তো প্রেম হয়,’ যেটুকু সময় তুমি থাকো কাছ’, ‘এই দুনিয়া এখন তো আর সেই দুনিয়া নাই’ -এর মত তুমুল হিট গান তার সুরে বিখ্যাত হয়েছে।

আজ অন্য গানের জন্যে নয়, বরং বন্ধু দিবসের এই ডামাডোলে ‘বন্ধু তিন দিন পর বাড়ি গেলাম’ নামের বিখ্যাত গানটি নিয়ে কথা বলেছেন আলাউদ্দিন আলী। জানিয়েছেন, গানটি গেয়ে ওঠার আগের ইতিহাস। কিভাবে গানটি তুমুল জনপ্রিয়তা পেলো গোটা বাংলাভাষি মানুষের কাছে।

বাংলা চলচ্চিত্রের তুমুল জনপ্রিয় গান ‘বন্ধু তিন দিন পর বাড়ি গেলাম দেখা পাইলাম না’। আশির দশকের শুরুতে ‘কসাই’ নামের সিনেমায় কিংবদন্তি শিল্পী রুনা লায়লা কণ্ঠ দেন গানটি। সে সময়তো বটেই এরপরও গানটি মানুষের মুখে মুখে ফিরেছে। গানটি রুনা লায়লার মুখে সবাই শুনলেও প্রথমে নাকি গানটি তিনি গাননি!

গাজী মাজহারুল আনোয়ারের লেখায় ও আলাউদ্দিন আলীর সুরে আশির দশকের শুরুতে এই গানটি প্রথমে গেয়েছিলেন বাংলার আরেক কিংবদন্তি শিল্পী সাবিনা ইয়াসমিন। এমন চমকিত হওয়ার খবরই জানালেন সুরকার আলাউদ্দিন আলী।

সুরস্রষ্ঠা আলাউদ্দিন আলী বলেন, সেসময় আমরা অনেকেই প্রায় প্রতিদিন গাজী মাজহারের বাড়িতে বসতাম। তিনি হারমোনিয়াম নিয়ে বসতেন। যারা যারা গান লিখতেন সবাই একসঙ্গে বসতাম। নতুন লেখা গান নিয়ে কথা বলতাম। কথার ছলে হারমোনিয়াম বাজাতাম। গানের নতুন কথা বেরিয়ে আসলে ওখানেই সুর করে ফেলতাম।

এমনই এক বৈঠকে একদিন ‘বন্ধু তিন দিন’ গানটা বেরিয়ে আসে গাজী মাজহারের লেখনীতে। আর আমিও হারমোনিয়াম বাজিয়ে সুরটা তুলে ফেলি।

গান লেখা ও সুর করার পরে আমরা ভাবতাম আসলে কাকে দিয়ে গানটি গাওয়ানো যায় বা এরকম ধাঁচের গানটি কার গলায় মানাবে সেটি নিয়েও ভাবতাম। সেই হিসেবে প্রথমে সাবিনা ইয়াসমিনের কণ্ঠে গানটি রেকর্ড করা হয়।

কিন্তু পরবর্তিতে ‘কসাই’ ছবিতে গানটি গেয়েছিলেন রুনা লায়লা।

গানটির মধ্যে মজার কথা ও মেলোডিয়াস সুরের মিশ্রনে শ্রুতিমধুর যে আবহ তৈরি হয়েছে তাই আসলে গানটিকে হিট করে দিয়েছে বলে মনে করেন আলাউদ্দিন আলী।

‘এইগুলোর খুব বড় গল্প না। আমাদের বৈঠক থেকেই এরকম আরও বহু হিট গান বেরিয়ে এসেছে। মূলত মাঝেমাঝে আমরা একসঙ্গে বসলেই গানগুলো বেরিয়ে আসতো। পরবর্তীতে কে গাইবে। কলকাতায়ও পরে গাইছে।

যে গান বছরের পর বছর মানুষের মুখে ফিরে সেটাইতো কালজয়ী। এই হিসেবে আমার সুর করা ম্যাক্সিমাম গানই কালজয়ী গান। বললেন আলাউদ্দিন আলী।

যোগ করলেন, ‘শুধু বন্ধু তিনদিন নয়, বরং আমার কোনো গান হিট হয়নি এমনটা পাওয়া যাবে না। যদিও অন্যান্য গানগুলোর তুলনায় বন্ধু তিন দিন পর’- একটা হালকা গান। তবে সর্বকালের হিট গান!’

রুনা লায়লার কণ্ঠে


ববিতার ঠোঁটে…


গানটি নতুন করে গেয়েছেন সুরকার আলাউদ্দিন আলীর মেয়ে আলিফ আলাউদ্দিন

সংবাদটি 2,148 বার পঠিত
advertise