|

ওয়ার্ডের সত্যিকারের উন্নয়ন ও সুবিচার নিশ্চিত করতে চাই-সিরাজ খাঁন

সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত সম্ভাব্য কাউন্সিলার পদপ্রার্থী, – সিরাজ খান ৮নং ওয়ার্ডের সুঃখে দুঃখে থাকতে চাই এবং সন্ত্রাসমুক্ত ওয়ার্ড গঠন করতে চাই
সুরমাভিউ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে দেয়া নির্বাচনী স্বাক্ষাতকারে জানান। সিসিক নির্বাচনে বিএনপি মনোনীত সম্ভাব্য কাউন্সিলার পদপ্রার্থী সিরাজ খান ধারাবাহিক পর্বের প্রথম স্বাক্ষাতকার সুরমাভিউ টোয়েন্টিফোর ডটকম প্রকাশ করে।

উক্ত স্বাক্ষাতকারটি নিয়েছেন আমাদের সুরমাভিউ টোয়েন্টিফোর ডটকম’‘র স্টাফ রির্পোটার মোঃ এমদাদ হোসেন। সহযোগীতা করেছেন সুরমাভিউ এর সম্পাদক এমদাদুল হক সোহাগ।

নির্বাচন কেন্দ্রীক এই স্বাক্ষাতকারটি তুলে ধরাহলো

সুরমাভিউঃ আপনি কি আগামী সিসিক নির্বাচনে কাউন্সিলার প্রার্থী হিসাবে অংশ গ্রহণ করতে চান? আপনি যে ওয়ার্ড থেকে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করবেন আপনার এই ওয়ার্ড থেকে আর কে কে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতে পারেন?

সিরাজ খান: ৮নং ওয়ার্ডবাসীকে সন্ত্রাস মুক্ত ও সত্যিকারের উন্নয়ন দেওয়ার লক্ষ্যে মহান উদ্দেশ্য নিয়ে আমি আগামী সিসিক নির্বাচনে কাউন্সিল প্রার্থী হিসাবে অংশ গ্রহণ করব ইনশাআল্লাহ।

আমার সাথে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার মত কেউ নেই বলে আমি মনে করি ,যদি থাকে তাহলে একজন, তিনি হলেন জগদীশ চন্দ্র দাশ, সাবেক কাউন্সিলর।

সুরমাভিউঃ কোন কারনে যদি আপনি দলীয় সমর্থন না পান তাহলে কি আপনি স্বতন্ত্র নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করবেন?

মোঃ সিরাজ খানঃ আমার দল আমাকে সমর্থন করবে এটা নিশ্চিত এ ব্যাপারে দল আমার সাথে অনেক বার বসেছে। দলের প্রতি আমার বিশ্বাস আছে। কোন কারণে যদি দল আমাকে সমর্থন না দেয় তাহলে আমার প্রাণের নগরবাসী ৮নং ওয়ার্ড এর ভালোবাসায় আমি নির্বাচন করবো, তারা আমাকে ভোট দিয়ে অবশ্যই জয় লাভ করাবে। এটা আমার বিশ্বাস।

সুরমাভিউঃ দল যে আপনাকে সমর্থন দেবে, আপনি কি নিশ্চিত? দলের সমর্থন পাওয়ার জন্য আপনার কি কি পজেটিভ দিক আছে?

সিরাজ খানঃ দলীয় সমর্থন আমি অবশ্যই পাব এটা আমার বিশ্বাস কারণ আমি দলীয় কারও সাথে কোনো যোগাযোগ এখন ও করিনি কিন্তু দল থেকে আমার সাথে আলাপ করা হয়েছে এতে কোনো সমস্যা নেই এতে পজেটিব দিক হল দল আমাকে অবশ্যই ৮নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর হিসাবে দেখতে চায়। কারণ ওয়ার্ডে বিএনপি মনোনীত একমাত্র আমিই এই বছর মাঠে আছি এটা হল সবচেয়ে বড় দিক।

সুরমাভিউঃ আপনার এলাকার ভোটাররা যে আপনাকে চায়, ইহা কি আপনার দল অবগত আছে?

সিরাজ খান: হ্যা অন্যান্য বছরের চেয়ে এই বছর এলাকার ভোটাররা আমাকে চায়।আমি দলের জন্য আন্দোলন করতে গিয়ে আমি ৩ বার জেল কেটেছি, ২০১৫ সালে তিন মাস ৫ দিন, ২০১৭ সালে ৭ দিন এবং ২০১৮ তে ম্যাডাম রায়ের পর ফেব্রুয়ারি ১০ তারিক রাজপথ থেকে পুলিশ আমাকে ধরে।গত বছর পারিবারিক যে সম্যস্যাগুলো ছিল এই গুলো মানুষের ভুল ধারণা ওঠে গেছে। পরিবার থেকে আমাকে সম্পূর্ণ ভাবে সমর্থন করে আমি যে একজন ভালো মানের কাউন্সিলর হই। পরিবার থেকে আমার সমর্থন আছে বিধায় আমার জয় হবে নিশ্চিত। এটি আমার দল অবগত আছে।

সুরমাভিউঃ মনে করেন আপনি দলের সমর্থন পেলেন, নিবিার্চন করলেন, কাউন্সিলার হিসেবে পাশ করলেন, তখন সর্বপ্রথম আপনার এলাকার জনসাধারণের জন্য কি কি কাজ করবেন, বলবেন কি?

মো: সিরাজ খান: কাউন্সিলর হওয়ার পর প্রথম কাজ হবে আমার এলাকার উন্নয়ন, আমি কথায় বিশ্বাসী না কাজে বিশ্বাসী। যা বলি তাই করি, ৮নং ওয়ার্ড কে সুশীল সমাজ গড়ে তুলব এটা আমার ধীর প্রতিজ্ঞা। এবং ৮ নং ওয়ার্ডে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠা করব, মুরব্বিদের নিয়ে আমি বসব যাতে এলাকায় কেউ কোনো দূনীর্তি না করে। আমি ব্যক্তি কেন্দ্রিক কোন কাজ করব না একের সার্থে কাজ করব না সবার সার্থে কাজ করব আমি ওয়ার্ডের সবার জন্য ভালো একটা কিছু করব এটা আমার প্রত্যাশা।

সুরমাভিউঃ আপনার আত্বীয়দের মধ্যে কী কেউ কাউন্সিলর প্রার্থি হবেন? যদি হয় তাহলে আপনার ভোটে কী প্রভাব পরবে?

মো: সিরাজ খান: আত্বীয়দের মধ্যে অনেকে আছে এটা কোনো বিষয় না। একজনের কথা না বললেই নয় তার নাম হল ফয়জুল হক সে গত সিসিক নির্বাচনে জগদীশ চন্দ্র দাশের হয়ে তার সাথে কাজ করেছে।সে আমার ভাগিনা হলেও আমি বলব তার দল তাকে পছন্দ করে না যার দলই তাকে পছন্দ করে না তাকে কে ভোট দিবে। সে এইবার ৮ নং ওয়ার্ডে প্রার্থি হিসাবে নির্বাচনে অংশগ্রহন করেছে , সে আপনাদের বলেছে দল থাকে সমর্থন করবে এই কথায় দ্বীমত কারন আমি যতটুক জানি দল থেকে কোনো সমর্থন দেওয়া হবে না দল তাকে চায় না সে কোনো নির্বাচনে অংশ নেয়। যে ছেলে নিজের আত্বীয় ছেরে অন্যদের সাথে সঙ্গ দেয় তাকে ওয়ার্ডবাসী কীভাবে ভোট দিবে

সুরমাভিউঃ আপনার নির্বাচনী এলাকা ৮ নং এলাকাবাসীর জন্য কিছু বলুন?

মো:সিরাজ খান: প্রতমত হল আমি বিএনপির মনোনীত একজন প্রার্থী এইটা আমার জন্য একটি সুবিধাজনক কারণ এই ওয়ার্ডে বিএনপি মনোনীত একমাত্র প্রার্থী হিসাবে আমি আছি এখন পর্যন্ত। ৮ নং এলাকাবাসীকে আমি এতটুকুই বলব, আমার অতীতে যদি কোনো ভুল ত্রুটি থাকে তাহলে আমাকে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন, এবং গত সিসিক নির্বাচনে জগদীশ চন্দ্র দাশকে যেভাবে ভোট দিয়ে জয়লাভ করেছেন। আমি আশা করি সবাই আমাকে আপনাদের মূল্যবান ভোট দিবেন। ইনশাআল্লাহ্ আমি আপনাদের জন্য, সমাজের জন্য ৮ নং ওয়ার্ডের জন্য কিছূ করতে পারি। আমি সত্যিকারের সমাজ সেবক হয়ে কাজ করব এই প্রত্যাশা ওয়র্ডবাসীকে দিচ্ছি, আমি চাই সবার সুঃখে দুঃখে থাকতে। ওয়ার্ডবাসী আমাকে ব্যপকভাবে নির্বাচিত করাবে,এবং আমি তারাপুর মওজা বাসির বসত বাড়ি বানিয়ে থাকা দের পাশে থেকে তাদের কে সহযোগীতা করবো।

সুরমাভিউ টোয়েন্টিফোর ডটকম কে সময় দেওয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

সিরাজ খান:: আপনাদের মাধ্যমে ওয়ার্ডবাসীর মুসলীমদের প্রতি রইল সালাম ও হিন্দু ভাই-বোনদের আদাব। এবং সবার প্রতি ভালোবাসা।

সংবাদটি 1,126 বার পঠিত
advertise