|

৫ কারণে স্বামীর ভালবাসা হারায় স্ত্রী

নারীরা সব সময় চান তার জীবনসঙ্গী তার আগ্রহের কেন্দ্রে থাকুক। তবে সম্পর্কের বোঝাপড়াটা কিন্তু অবশ্যই আপনাকে ভালোভাবে বুঝতে হবে।

অনেক ক্ষেত্রে দেখা যায়, আপনার কিছু গুণ বা বৈশিষ্ট্য থাকে যার ফলে প্রিয় মানুষটি আপনার উপর মন খারাপ করতে পারে। মনে রাখবেন স্বামীর সঙ্গে কখনোই এমন কোনো আচারণ করবেন না যে আচারণ আপনার সম্পর্কে দূরত্ব বাড়াবে ও সংসার ভাঙার কারণ হতে পারে। এমন আচারণ করবেন না যা দেখে স্বামী আপনার থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবে। খুঁজে নেবে নতুন সঙ্গী।

আপনি জানেন কী ৫টি কারণে স্বামী আপনার প্রতি বিমুখ হতে পারেন? দাম্পত্য সম্পর্ককে করে তুলতে পারে প্রেমহীন, যন্ত্রণাকর।

আসুন জেনে নেই যে ৫ আচারণ স্বামীর সঙ্গে কখনোই করবেন না।

আপনার ভাবনা-চিন্তা, অনুভূতি সে জানে

অনেক নারী মনে করে তার চিন্তা-ভাবনা বা অনুভূতির বিষয়গুলো তার পছন্দের পুরুষটি বুঝতে পারে। এজন্য সেগুলো তার সঙ্গে শেয়ার করতে বা বলতে বিরত থাকে। উল্টো তারা প্রত্যাশা করে সে কেন বুঝে নেয় না তার কথা। এটা পুরুষদের কাছে অনেক সময় বিরক্তি সৃষ্টি করে। দেখা গেলো কোন কিছু বললো না কিন্তু নারী আশা করে বসে আছেন তার পুরুষ সঙ্গী বুঝে নেবে। আপনার সঙ্গী তো জ্যোতিষি নাও হতে পারে। এজন্য নারীদের নিজের অনুভূতি ও চিন্তাভাবনা শেয়ার করে দেওয়াই উত্তম। এটা ভুল বুঝাবুঝির কোন জায়গা রাখে না।

সবসময় আমিই সেরা ভাব ধরা

অনেক নারীর মধ্যে এটা দেখা যায় যে সবসময় তার সঙ্গীকে বোকা মনে করে এবং নিজেকে তার চেয়ে চতুর ও বুদ্ধিমান মনে করে। এজন্য বিভিন্ন সময় তার সঙ্গীকে নিয়ে মজা করতে দেখা যায়। এটা পুরুষদের কাছে বিরক্তিকর ঠেকে। নিয়মিত এরকম করে গেলে পুরুষ সঙ্গী মুখ ফিরিয়ে নিতে পারে।

অতিরিক্ত তথ্য শেয়ার করা

পুরুষরা সাধারণত তাদের সমস্যা বলে বেড়াতে পছন্দ করে না। সেখানে অনেক নারীকেই দেখা যায় গলায় পড়ে সব বিষয়াদি অন্যের সঙ্গে শেয়ার করে। আপনার পুরুষ সঙ্গীকে বিভিন্ন তথ্যভারে ভারাক্রান্ত করে দিয়েন না। বিশেষ করে আপনার সাথে গোপনে যেসব শেয়ার করা হয়েছে সেগুলো গোপনীয়ই রাখুন। এটা আপনার প্রতি আস্থা তৈরি করবে।

সময়ের আগে ভবিষ্যত নিয়ে পরিকল্পনা করা

ভবিষ্যত নিয়ে ভাবনা থাকা ভালো কিন্তু অতিরিক্ত দুর্ভাবনা বর্তমানের আনন্দকে মাটি করে দিতে পারে। অনেক নারীকেই দেখা যায় তারা কী কী করবে, কী কী করতে চায়, কী কী করা দরকার ইত্যাদি প্যাচাল দিয়ে সঙ্গীর কান ঝালাপালা করে ফেলেন। নারীদের এমন আচরণে পুরুষ বিরক্ত হতে পারে।

শ্বাশুড়ীর প্রতি শ্রদ্ধা না থাকা

মা হচ্ছে প্রত্যেকটি মানুষের কাছে অত্যন্ত আবেগের জায়গা। আপনার শ্বাশুড়ীর সঙ্গে কখনোই নিজেকে মেলাতে যাবে না। মায়ের প্রতি স্বামীর আবেগ নিয়ে রহস্য করবেন না। শ্বাশুড়ীর প্রতি শ্রদ্ধাবোধ সব স্বামীরা পছন্দ করেন। তাই শ্বাশুড়ীর দেখভালসহ তার প্রতি শ্রদ্ধার সঙ্গে কথা বলুন। মনে রাখবেন শ্বাশুড়ীর সঙ্গে খারাপ আচারণ স্বামীর সঙ্গে দূরত্ব বাড়ায়।

সূত্র: টাইমস্ অব ইন্ডিয়া

সংবাদটি 73 বার পঠিত
advertise