|

তামিমের গ্লাভস কেটে দিয়েছিলেন মাশরাফি!

এবারের এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচেই দেশ সেরা ওপেনার তামিম ইকবালের অনেক স্বপ্ন শেষ হয়ে গেছে।

শনিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশের ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই তামিমের স্বপ্নের মৃত্যু হয়। ডাক্তারি পরীক্ষা শেষে এমনটাই ভাবতে সাহায্য করেছে ক্রিকেটপ্রেমী থেকে শুরু করে তামিমকেও।

শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ব্যাট করতে নেমে ইনিংসের শুরুতেই চোট পান। এর পরের কথা সবারই জানা। মাঠ থেকে সরাসরি হাসপাতালে যেতে হয় তাকে। স্ক্যান করার পর জানা যায়, বাঁ হাতের আঙুল ভেঙে গেছে। ফলে ৬ সপ্তাহের জন্য মাঠের বাইরে থাকতে হবে তামিমকে। অথচ দলের জন্য দেশের জন্য কিনা ২ ঘণ্টা পরই ব্যান্ডেজ নিয়ে ব্যাট হাতে ক্রিজে নামলেন তামিম। এই দৃশ্য দেখে ক্রিকেটপ্রেমী তো পুরাই অবাক!

তামিম ইকবালকে ব্যান্ডেজ হাতে নামতে দেখে অবাক হন মুশফিকুর রহীমও। এমনকি লঙ্কান অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউস পর্যন্ত।

দুবাই স্টেডিয়ামে উপস্থিত হাজার হাজার দর্শকসহ যারা টিভি পর্দায় খেলা দেখছিলেন তারাও ভালো করে দেখেন- এ যে তামিমই। যেসব সমালোচকরা বলেছিলেন বোর্ড কর্তা চাচা আকরাম খানের সূত্র ধরেই তামিম ইকবাল এখনও দলে, এই দৃশ্য দেখার পর তাদের মুখে কুলুপ এঁটে রইল। নতুন ভারে দেশপ্রেমের নমুনা তৈরি করলেন তামিম।

এরপলে গল্প ইতিহাস। চোট আক্রান্ত তামিমকে সঙ্গে নিয়ে দলের স্কোর বোর্ডে ১৬ বলে ৩২ রান যোগ করেন এই ম্যাচের নায়ক মুশফিকুর রহীমও। আর এ ঘটনাটাই বদলে দিয়েছে পুরো ম্যাচের চিত্র। তামিমের দেশপ্রেমের এই বীরত্বেই আগ্রহ টা পেয়ে যায় বাংলাদেশ।

ক্রিকেটপ্রেমী থেকে ক্রিকেটবোদ্ধা সবার মনেই প্রশ্ন ওঠে ভাঙা হাত নিয়ে মাঠে নামার সিদ্ধান্ত কিভাবে নিলেন তামিম?

জানা গেছে, সিদ্ধান্তটা স্বয়ং অধিনায়ক মাশরাফির। অষ্টম উইকেট পড়ে যাওয়ার পর সিদ্ধান্ত হয় আরেক উইকেট পড়লে মুশফিক যদি স্ট্রাইকে থাকে তবেই ব্যাট হাতে মাঠে নামবেন তামিম। কিন্তু ৪৭তম ওভারে মোস্তাফিজুর রহমান আউট হওয়ার সময় নন-স্ট্রাইকে ছিলেন মুশফিক। ওই ওভারের ১ বল বাকি ছিল। ফলে মাশরাফির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তখন আর তামিমের মাঠে নামার কথা না। অর্থাৎ ২২৯ রানেই থেমে যাওয়ার কথা ছিল বাংলাদেশের। কিন্তু তামিমের কারণে তা হয়নি। নিজেই সিদ্ধান্ত নিলেন ভাঙা হাত নিয়ে মাঠে নামার। ব্যস, কথা মোতাবেক মাঠে নেমে পড়লেন তামিম। বাকিটা ক্রিকেটে ইতিহাস হয়ে রইল।

টিভি স্ক্রিনে ফুটে উঠে তামিমের ভাঙা আঙুলের ওপর সুনিপুণ কারিগরিতে গ্লাভসটিকে কেটে সেট করা হয়েছে। তখন খানিকট প্রশ্ন জেগেছে এমন কারিগরকে?

জানা গেল এটিও যে মাশরাফির কাণ্ড! নড়াইল এক্সপ্রেস তামিমের মাঠে নামার প্রস্তুতি সেরে রেখেছিলেন। দুই আঙুলে ব্যান্ডেজ থাকায় হাতে গ্লাভস পরা সম্ভব হচ্ছিল না। তামিমের সিদ্ধান্তের পর অধিনায়ক নিজে গ্লাভস কেটে হাতে সেট করে দেন। সেই গ্লাভস পরেই মাঠে নামেন তামিম। অধিনায়ক মাশরাফির দেয়া গ্লাভস হাতে বাংলাদেশের ক্রিকেটের সবচেয়ে স্বর্ণময় ইতিহাসটি সৃষ্টি করলেন দেশ সেরা ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবাল।

যা কিনা ক্রিকেটপ্রেমীরা মনে রাখবে যুগের পর যুগ। নতুন প্রজন্মের জন্য উদাহরণ হয়ে থাকবেন তিনি।

সংবাদটি 141 বার পঠিত
advertise