|

“জনগণের অধিকার প্রতিষ্ঠায় কখনো আপোষ করেননি বঙ্গবন্ধু”

জুবায়ের আহমদ, লন্ডন থেকে :: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিরুদ্ধে তৎকালীন পাকিস্তান ইন্টেলিজেন্স ব্রাঞ্চের গোপন নথি নিয়ে ‘সিক্রেট ডকুমেন্ট অব ইন্টেলিজেন্স ব্রান্স অন ফাদার অব দ্য নেশন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’ শিরোনামে প্রকাশিত ১৪ খণ্ডের বইয়ের প্রথম খণ্ড নিয়ে যুক্তরাজ্যে বসবাসরত বাংলা ভাষাভাষি বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকদের সাথে এক মতবিনিময় সভার আয়োজন করে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ।

সংগঠনের যুক্তরাজ্য শাখার সভাপতি সুলতান মাহমুদ শরীফের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুকের পরিচালনায় সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন বিশিষ্ট সাংবাদিক ও সাহিত্যিক আব্দুল গাফ্ফার চৌধুরী।

তিনি তাঁর বক্তৃতায় বলেন, বঙ্গবন্ধুর পেছনে সব সময় পাকিস্তান গোয়েন্দা সংস্থা লেগে থাকতো কারণ, ‘বঙ্গবন্ধু প্রতিটি জায়গায় বৈষম্য ও মানুষের বঞ্চনার কথা তুলে ধরতেন যে, আমরা সংখ্যায় বেশি অথচ আমরা সব জায়গা থেকে বঞ্চিত।

বঞ্চনার বিরুদ্ধে তিনি লড়াই সংগ্রাম করেছেন, সোচ্চার হয়েছেন। আর এ কারণেই মনে হয় যে তার প্রতি একটি বৈরি মনোভাব ছিল। তার ফলাফলটা ছিল এই— তার বিরুদ্ধে গোয়েন্দা সংস্থা সব সময় সক্রিয় ছিল। ’

‘তার প্রতিটি কাজের রিপোর্ট তৈরি করতো পাকিস্তান ইন্টেলিজেন্স ব্রাঞ্চ, আর এই রিপোর্ট তারা ওপর মহলে পাঠাতো। এই রিপোর্টের ওপর ভিত্তি করে তার বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হতো। তাকে কারাগারে বন্দি করা হতো।’

যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান মাহমুদ শরীফ তাঁর বক্তৃতায় বলেন, নথিগুলো বই আকারে প্রকাশের কারণে এর ভেতর থেকে বাংলাদেশের জনগণ আসল সত্যটাকে জানতে পারবে। সত্যকে আবিষ্কার করতে পারবে। বাংলাদেশের ইতিহাস জানতে পারবে।’

যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাজিদুর রহমান ফারুক বলেন, ঐতিহাসিক দৃষ্টিকোণ থেকে অমূল্য এসব ডকুমেন্ট দেশ-জাতি ও বহির্বিশ্বে পৌঁছে দেওয়ার প্রয়াসে ‘সিক্রেট ডকুমেন্ট অব ইন্টেলিজেন্স ব্রান্স অন ফাদার অব দ্য নেশন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান’ শিরোনামে ১৪ খণ্ডে বই আকারে ধারাবাহিকভাবে প্রকাশ করা হবে। তার প্রথম খন্ড প্রকাশিত হয়েছে। তিনি এটি সকল প্রবাসীদের সংগ্রহ করার জন্য আহবান জানান।

উক্ত মতবিনিময় সভায় ব্রিটেনে বসবাসরত বাংলা মিডিয়ার বিপূল সংখ্যক সাংবাদিক ছাড়াও যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সহ সভাপতি অধ্যাপক আবুল হাসেম, সৈয়দ মোজাম্মেল আলী, সিতাব চৌধুরী, যুগ্ম সম্পাদক নঈম উদ্দিন রিয়াজ, মারুফ চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ্ব সাজ্জাদ মিয়া, আব্দুল আহাদ চৌধুরী, শাহ শামীম আহমদ, আ স ম মিসবাহ, কাওছার চৌধুরী, সৈয়দ ছুরুক মিয়া, মেহের নিগার চৌধুরী, এস এম সুজন, লুৎফুর রহমান ছায়েদ, লন্ডন আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব নুরুল হক লালা মিয়া, যুক্তরাজ্য যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সেলিম আহমদ খাঁন, যুগ্ম সম্পাদক জামাল খাঁন, যুগ্ম সম্পাদক জুবায়ের আহমদ, সাংগঠনিক সম্পাদক বাবুল খাঁন, মহিলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুসলিমা শামস বন্নি, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ছায়াদ আহমদ সাদ, শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদক এম ইকবাল হোসেন, কৃষকলীগের আহবায়ক সৈয়দ তারেক, যুগ্ম আহবায়ক এম এ আলী, তাতীলীগের আহবায়ক এম এ সালাম, যুগ্ম আহবায়ক সিপন ক্বোরেশী, যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক সাজিয়া সুলতানা স্নিগ্ধা, ছাত্রলীগের সভাপতি তামীম আহমদ সাধারণ সম্পাদক সজীব ভূঁইয়া সহ সভাপতি সারোয়ার কবির, আশিকুল ইসলাম আশিক প্রমূখ।

অনুষ্টানে যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে প্রত্যেক সাংবাদিকদের হাতে বইটি তুলে দেয়া হয়।

সংবাদটি 175 বার পঠিত
advertise