|

ম্যালেরিয়া শনাক্ত করতে পারে কুকুর

বিজ্ঞানীরা বলছেন, তারা কিছু কুকুরকে প্রশিক্ষণ দিয়েছেন যারা আক্রান্ত ব্যক্তির গন্ধ শুঁকে ম্যালেরিয়া শনাক্ত করতে পারবে।

যুক্তরাজ্যের ডারহাম ইউনিভার্সিটির গবেষকরা বলেন, গন্ধ শুঁকে ম্যালেরিয়ার শনাক্তের জন্য যেসব কুকুরকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে ফ্রিয়া তাদের একটি। তারা বলেন, ফ্রিয়ার অত্যন্ত সংবেদনশীল নাক এই রোগের জন্য প্রথম অ-আক্রমণকর পরীক্ষায় সাহায্য করতে পারে।

ম্যালেরিয়ার বিস্তার রোধে এবং সময়মতো চিকিৎসার জন্য স্নিফার কুকুরগুলো (গন্ধ শুঁকে মাদক বা বিষাক্ত উপকরণ নির্ণয়কারী) সীমান্ত এলাকার  প্রবেশদ্বারগুলোতে মোতায়েন করা যেতে পারে।

গবেষকরা দেখেছেন যে সংক্রমিত শিশুদের মোজা শুঁকে ম্যালেরিয়া শনাক্ত করতে পারে এসব কুকুর।

ডারহাম ইউনিভার্সিটির একজন অধ্যাপক স্টিভ লিন্ডসে বলেন, ‘আমাদের গবেষণায় প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। নীতিগতভাবে আমরা দেখিয়েছি যে আক্রান্ত ব্যক্তিদের গন্ধ শুঁকে সঠিকভাবে ম্যালেরিয়া শনাক্ত করতে পারবে প্রশিক্ষিত কুকুরগুলো।’

স্টিভ লিন্ডসে আরো বলেন, এটি ম্যালেরিয়ার বিস্তার রোধে সাহায্য করতে পারে। দেশকে ম্যালেরিয়ামুক্ত ঘোষণা করতে এবং অসচেতনদের সচেতন করতে বিষয়টি ভূমিকা রাখতে পারে যাতে তারা ম্যালেরিয়ারোধী ওষুধ গ্রহণ করতে পারে।

মেডিক্যাল রিসার্চ কাউন্সিল ইউনিট, দ্য গাম্বিয়া (এমআরসিজি) এবং লন্ডন স্কুল অফ হিজিন অ্যান্ড ট্রপিক্যাল মেডিসিন (এলএসএইচটিএম)-এর গবেষকরা পশ্চিম আফ্রিকার দেশ গ্যাম্বিয়ার উপকূলীয় অঞ্চলের পাঁচ থেকে ১৪ বছর বয়সী শিশু-কিশোরদের পায়ের গন্ধের নমুনা সংগ্রহের জন্য তাদের ব্যবহৃত নাইলনের মোজা ব্যবহার করেন।

নমুনাগুল ইউকে মিল্টন কিনস, যুক্তরাজ্যের মেডিক্যাল ডিটেকশন ডগস (এমডিডি) চ্যারিটিতে স্থানান্তর করা হয়। তারপর প্রশিক্ষিত কুকুরদের দিয়ে ম্যালেরিয়া আক্রান্ত শিশু-কিশোর ও অসংক্রমিতদের আলাদা করা হয়।

পরীক্ষাগারে গবেষণায় মোট ১৭৫টি মোজা নেওয়া হয়। তাতে দেখা যায় ৩০টি মোজা ম্যালেরিয়া আক্রান্ত বাচ্চার। আর ১৪৫টি অসংক্রমিত শিশু-কিশোরের।

এরপর মোজাগুলো কুকুরগুলোর কাছে পরীক্ষার জন্য দেওয়া হয়। দেখা যায়, কুকুরগুলো সঠিকভাবে ম্যালেরিয়া সংক্রমিত নমুনার ৭০ শতাংশ সনাক্ত করতে সক্ষম হয়েছে। গবেষকরা বলেন, কুকুরগুলো মোট নমুনায় যারা ম্যালেরিয়া আক্রান্ত নয় তাদের ৯০ শতাংশই সঠিকভাবে শনাক্ত করতে সক্ষম হয়।

সূত্র: হিন্দুস্তান টাইমস

সংবাদটি 17 বার পঠিত
advertise