|

৫০ হাজার টাকা ঘুষ না দিলে জায়গার মালিকানা ভূলে যান – কর্মধা ইউপি চেয়ারম্যান আতিক

বিশেষ প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজার কুলাউড়া উপজেলার ১৩ নং কর্মধা ইউনিয়নের পুর্বা হাসিম পুর গ্রামের সৌদি প্রবাসী সাংবাদিক সেলিম আহমেদের নিজ ক্রয়কৃত জায়গা গত ১ নভেম্ভর ২০১৮ তারিকে সাংবাদিক সেলিম আহমেদ প্রবাসে থাকায় পরিবারের পক্ষ থেকে নিজ ক্রয়কৃত জায়গায় শীতের মৌসুমী ফসল ফলানোর জন্য জায়াগায় কাজে গেলে সৌদি আরব প্রবাসী সেলিম আহমেদের বাড়িতে থাকা মহিলাদেরকে হুমকি ধমকি দিয়ে কাজের লোকদের প্রবাসী সাংবাদিক সেলিম আহমেদের নিজ ক্রয়কৃত জায়গাথেকে হুমকি দমকি দিয়ে তুলে দে একই গ্রামের আব্দুল খালেক , এমনকি জায়গায় ফসল লাগানোর জন্য গেলে খুন করবে বলে হুমকি দিয়েছে আব্দুল খালেক । এসময় সাংবাদিক সেলিম আহমেদের আম্মা ছমিরুন নেছা ,আব্দুল খালেকের হুমকির কথা সৌদি আরব সেলিম আহমেদকে জানালে , সেলিম আহমেদ কর্মধা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আতিক কে বিষয়টি জানান , সাথে সাথে চেয়ারম্যান আতিক গ্রাম পুলিশ পাঠিয়ে জায়গার কাজ কর্ম বন্দ করার নির্দেশ দেন , এবং পরদিন চেয়ারম্যানের বাড়িতে যাওয়ার কথা বলেন চেয়ারম্যানের পাঠানো গ্রাম পুলিশ । পর দিন সকালে জায়গার মালিক সৌদি আরব প্রবাসী সেলিম আহমেদের আম্মা ও গুতুম পুর গ্রামের সর্দার মিরজান আলী ও সেলিম আহমেদ্র বোনের স্বামী চেয়ারম্যান আতিকের বাড়িতে গেলে ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন এবং আগামী শনিবারে বিষয়টি দেখে দিবেন বলে তাদেরকে জানিয়ে দেন । আজ বৃহস্পতিবার কর্মাধা ইউনিয়ন থেকে ফের গ্রামপুলিশ পাঠিয়ে বলেন আগামী শনিবার চেয়ারম্যান আসতে পারবেন না , প্রবাসী সেলিম আহমেদের আম্মা গ্রাম পুলিশের কাছে জানতে চাইলেন চেয়ারম্যান কেন আসতে পারবে না ,গ্রাম পুলিশ জানিয়েদে চেয়ারম্যান আতিক কে ৫০ হাজার টাকা নাদিলে ভুলে যান মালিকানা । এসময় সাংবাদিক সেলিম আহমেদ সৌদি আরব থেকে চেয়ারম্যান আতিকের কাছে ফোন দিলে চেয়ারম্যান আতিক সাফ জানিয়েদেন ৫০ হাজার টাকা না দিলে জায়গার মালিকানা ভুলে যাওয়ার । এদিকে কর্মধা ইউপি চেয়ারম্যান এম এ রহমান আতিকের নামে অনেক অভিযোগ রয়েছে । জানা যায় সরকারী টিউভেল চেয়ারম্যানের নিজ বাড়িতে স্থাপন করায় ও বিগত জেলা পরিষদ নির্বাচনের সময় প্রার্থীদের কাছথেকে বড় অংকের টাকা নেওয়ায় , বিচার করতে গিয়ে টাকা চাওয়ায় , কর্মধা ইউনিয়নের বিভিন্ন প্রজক্ট থেকে টাকা আত্মসাৎ করায় এক্কেবারেই চেয়ারম্যান আতিকের উপরে জনগনের আস্থা নেই বলে চলে এমন অভিযোগ কর্মধা জনমানুষের । এম এ রহমান আতিক বিগত ২বার চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়ে সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুস সহিদের কাছে ভোটে হেরে যান শেষমেষ গত ইউপি নির্বাচনে বিভিন্ন ভাবে লবিং করে আওয়ামীলীগ থেকে নৌকা প্রতিক নিয়ে নির্বাচনে প্রার্থী হন , কর্মাধার জনগনের কাছে আকুতি মিনতি বিভিন্ন আশ্বাস দেওয়ায় ও কর্মধার জনগনের সবসময় পাশে থাকার প্রতিশ্রুতি দিয়ে জনগনের নরম মনে জায়গা করে নেন । এম এ রহমান আতিক নির্বাচনে জয়ী হওয়ার পর কর্মধা ইউনিয়নের জনগনের প্রতিশ্রুতি ভুলে গিয়ে চলছে অহরহ দূরনীতি চাদাবাজি ঘোষ দালালী টাকা আত্মসাৎ ও বিভিন্ন হয়রানি মুলক অবিচার । এদিকে ৪ঠা ফ্রেব্রুয়ারী কুলাউড়া উপজেলার সদর ইউনিয়নের গুতগুতি গ্রামের এলাইছ মিয়ার ছেলে রিমন (৩২) ভোর রাতে কর্মাধা ইউনিয়নের মেঘাটিলার বিপরিতে দেও ছড়া এলাকায় খাসিয়াদের হাতে নৃশংসভাবে খুন হন রিমন । রাংগীছড়ার স্থানীয় এক ব্যবসায়ী জানান কর্মধা ইউপি চেয়ারম্যান এম এ রহমান আতিক রিমন হত্যাকারীর কাছথেকে বড় অংকের টাকা পেয়ে রিমন হত্যার বিচারকে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করেছেন আজ পর্যন্ত রিমন হত্যার বিচার হয়নি ।

সংবাদটি 735 বার পঠিত
advertise