|

সাগর পথে ইউরোপ যেতে প্রাণ গেলো ৩ বাংলাদেশীর

বদরুল বিন আফরোজ।।

ইউরোপে যাওয়ার পথে এক মাসে কয়েক দফা প্লাষ্টিক বোড ডুবিতে তিন বাংলাদেশি অভিবাসী মারা গেছেন বলে জানা গেছে। গত ২২তারিখ ৭০ জনের বেশি বাংলাদেশিসহ প্রায় ৭০ যাত্রী নিয়ে নিখোঁজ হয় মরক্কো থেকে ছেড়ে যাওয়া একটি প্লাষ্টিক বোড।

এর মধ্যে একটি প্লাষ্টিক বোড এক দিন পর মরক্কো উপকূলে ফেরত গেলে ৩৫ বাংলাদেশি  জীবিত উদ্ধার করা হয়।

নিহতদের মধ্যে সুনামগঞ্জের কলকলিয়া ইউনিয়নের কালিটিকি গ্রামের দান্দ দেবনাতে ছেলে সজল দেবনাথ (৩০) , কুমিল্লার লঙ্গলকোট,দুরবাপুস গ্রামের আব্দুল মান্নানের ছেলে আমিনুল আসলাম(৪০),সিলেট,বিয়ানি বাজার, দাশ গ্রামের সিদ্দিক(২৫) সহ
তিন যুবকের মারা যাওয়া ও পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেলেও লাশ পাওয়া যায়নি।

আমিনুলর ছোটভাই হাসান জানান, গত ১ মাস আগে তার ভাই নারসিংন্দী, রায়পুরা থানার,মুসাপুর গ্রামের মৃত বারিক মিয়ার ছেলে হুমায়ুন অরপে আলী৷ দালালের মাধ্যমে মরক্কো পাড়ি জমান। আমিনুলকে বৈধ পথে ইউরোপ পাঠানোর উদ্দেশ্যে হুমায়ুন দালাল তাদের কাছ থেকে বিপুল অংকের টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এর পর হুমায়ুন দালাল অনেকের সঙ্গে তার ভাইকেও সাগরপথে প্লাষ্টিক বোডে ইউরোপ পাঠায়।

আমিনুলের ছোট ভাই হাসান প্রবাসী লিবিয়া থেকে বলেন, নৌকায় ইউরোপ যাত্রার পর থেকে তার ভাইয়ের সঙ্গে আর যোগাযোগ করতে পারেননি। দালালও ফোন বন্ধ করে রেখেছে।

মরক্কোতে হুমায়ুন দালালের কাছে অনেক বাংগালীরা আটক আছে বলে যানা গেছে এবং অনে যাত্রীর কাছ থেকে মার পিঠ করে টাকা আদায় করছে ।

সে বিভিন্ন জায়গায় বিভিন্ন ধরনের না দিয়ে থাকে, (১) হুমায়ুন (২)আলী (৩) আহমদ(৪) পাসপোর্ট এ নাম রয়েছে ওয়াহাব মিয়া, মরক্কোতে হুমায়ুন অরপে আলী নামে পরিচিত ।
হুমায়ুন দালালের রুম থেকে ফোনে নাম প্রকাশ না করা শর্তে এক যুবক এসব তত্ত্বের কথা জানান।

এ ব্যাপারে দেশটির রাজধানী রাবাট বাংলাদেশের দূতাবাসের সচিব বলেন, বিষয়টি তিনি শুনেছেন।

সংবাদটি 456 বার পঠিত
advertise