একজন সফল ব্লাড ডোনার নাট্যকার ও অভিনেতা ইমতিয়াজ কামরান

সুরমাভিউ রিপোর্ট।।

১১তম বার সেচ্ছায় রক্তদান করেন সিলেট ফ্রিডম ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও প্রধান পৃষ্ঠপোষক নাট্যকার ও অভিনেতা মোঃ ইমতিয়াজ কামরান তালুকদার একজন সফল ব্লাড ডোনার স্বেচ্ছাসেবী।রক্ত দিয়ে করবো মোরা মানবতার জয় নিজেকে আত্নমানবতার সেবায় নিয়োজিত করলেন।বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে যুক্ত তিনি দীর্ঘদিন থেকে।কাজে লেগে থাকা স্বভাবের এই ছেলের নাম মোঃ ইমতিয়াজ কামরান তালুকদার।মঞ্চ অভিনয়, উপস্থাপনা, নাটক লেখা,টিবি অভিনয় যেখানেই হোক সাংস্কৃতিক মনা তিনি আছেন সবখানে। তিনি ছোটবেলা থেকে সিলেটের পরিচিত মুখ।পড়ালেখা শেষ করেছেন ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ সিলেট এম সি কলেজ পলিটিক্যাল সায়েন্সে পোস্ট গ্রাজুয়েশনে । মঞ্চ অভিনয় আর টিভি নাটক সঙ্গে জড়িয়ে আছেন তিনি।তিনি বলেন সেচ্ছায় নিজে রক্তদান করি সেলেব্রিটি হওয়ার জন্য ব্লাড ডোনেট করি না। শুধু রোগীর মুখের স্নিগ্ধ হাসি আর ভালবাসা এবং রোগীর প্রশান্তিতে তাদের চোখে আনন্দের অশ্রু দেখতে ভাললাগে।এখানে সেলেব্রিটি হওয়ার ইচ্ছা নেই।রোগীর আনন্দের অশ্রু দেখে নিজেকে পৃথিবীতে সব থেকে বেশি সুখী মানুষ মনে করি।আমি যখন একজন মুমূর্ষ রোগী কে রক্তদাতা খুঁজে দিতে পারি তখন নিজেকে পৃথিবীতে সব থেকে বেশি সুখী মানুষ মনে করি।তখন কার অনুভূতি অসাধারন যা আসলে বলে বুঝানোর মত না।রোগীদের রক্তদান করতে গিয়ে আমি কারো ভাই হয়েছি কারো মামা হয়েছি কারো আপনজন হয়েছি আর কত কিছু বলে শেষ করা যাবে না।রোগীর লোকের মুখের স্নিগ্ধ হাসি দেখেছি,প্রশান্তিতে তাদের চোখে আনন্দের অশ্রু দেখেছি।যতদিন বেঁচে আছি এই কাজের সাথেই থাকতে চাই।প্রথমে যখন ব্লাডের রিকুয়েস্ট আসতো আমি খুব বিরক্ত হতাম।কিন্তু একটা সময় মানুষের ভালবাসা দেখে নিজেতেকে ব্লাড নিয়ে কাজ করার আগ্রহ জাগে।আর কাজ শুরু করার মতো একটা অসাধারণ প্লাটফর্মও পেয়ে যাই আমি। আমার বন্ধুরা আমাকে ব্লাড ডোনেট এর মত একটা প্লাটফর্ম দিয়েছেন যেখানে আমি নিজের স্বাধীনতায় কাজ করতে পারি।আমি নিঃসন্দেহে বলতে পারি ব্লাড নিয়ে কাজ করার ক্ষেত্রে প্লাটফর্ম রক্তদাতার সংখ্যা অনেক কম । মানুষ কাজ করার আগে শিখে নেয়,আর আমি কাজ করতে করতে শিখছি।যদিও আমি একেবারেই অজ্ঞ ছিলাম এই কাজের জন্য।কিছুই জানতাম না,কিছুই বুঝতাম না।ব্লাড ডোনেট কাজ করি ভালোলাগা থেকে,চেষ্টা করি মূমুর্ষ রোগীদের পাশে দাঁড়াতে। বাংলাদেশে রোগীর সংখ্যা অনেক বেশি,কিন্তু সেই অনুযায়ী রক্তদাতার সংখ্যা অনেক কম।নিজে রক্ত দিন পারলেও যাদের রক্ত দেয়ার মত যোগ্যতা এবং বয়স আছে আমি তাদের রক্তদানের বিষয়ে উৎসাহিত করার চেষ্টা করি।সার্বিক সহযোগিতায় একটি সামাজিক স্বেচ্ছাসেবী ও সাংস্কৃতিক সংগঠন সিলেট ফ্রিডম ক্লাব।আমি কৃতজ্ঞ সবার কাছে এভাবেই সবাইকে সাথে নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই সব সময়।কাজ করতে চাই বাংলাদেশের রক্তের সমস্যা সমাধানে।সবাইকে সাথে নিয়ে সবার সহযোগীতায় নিয়ে।আসুন আমরা নিজে রক্তদান করি এবং অন্যকে রক্তদানে উৎসাহিত করি।আপনার এক ব্যাগ রক্তে বাঁচতে পারে একটি প্রাণ তাহলে কেন করবেন না সেচ্ছায় রক্ত দান।এগিয়ে আসুন রক্ত দানে ফুঁটুক হাঁসি নতুন প্রাণে রক্ত দিন জীবন বাঁচান।বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে অংশগ্রহণ করি যা মানুষের জন্য মঙলজনক। মানবতার টানে ভয় নেই রক্তদানে ব্যয় করি কিছু সময়।রক্ত দিয়ে করবো মোরা মানবতার জয়।মানুষের জন্য কাজ করি সর্বোপরি মানবতার জন্য কাজ করতে চাই ।

You May Also Like