খালেদা জেলে, তারেক বিদেশে তারপরও আ’লীগের এত ভয় কেন?

বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবেদীন ফারুক বলেছেন, বেগম খালেদা জিয়া ১৮ মাসের ওপরে কারাগারে আছেন। তারেক সাহেব বিদেশে, তারপরেও কেন আওয়ামী লীগের এত ভয়।

আওয়ামী লীগকে উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, তারেক রহমানকে দেশে আসতে দেন, রাজনীতি করতে দেন। কোনো অন্যায় হলে আইন আছে। কিন্তু তাকে নির্বাসিত করে তার বিরুদ্ধে কথা বলবেন, সেটা তো রাজনীতির কোনো কর্মকাণ্ড না। এটাতো প্রাচীন একটি রাজনৈতিক দলের মুখে শোভা পায় না।

বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অপরাজেয় বাংলাদেশ নামে একটি সংগঠন আয়োজিত এক মানববন্ধনে দাঁড়িয়ে তিনি এসব কথা বলেন। বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও গ্যাসের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে এ মানববন্ধনের আয়োজন করা হয়।

ফারুক বলেন, বাংলাদেশ কোনোদিন পরাজিত হয়নি, হবেও না। বাংলার অকুতোভয় সন্তানেরা যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করে দিয়ে গেছে। সেই স্বাধীনতার স্বাদ গত ৪৮ বছরে এই সরকার যে কয়দিন ক্ষমতায় ছিল, যে কয়বার বিনা ভোটে সরকার পরিচালনা করেছে, তাতে বাংলাদেশের মানুষকে সুখ দিতে পারেনি, সংবিধানের প্রতি সম্মান দেখাতে পারেনি। বাংলাদেশের সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে এই সরকার সম্পূর্ণ ধ্বংস করে দিয়েছে।

বিএনপির সিনিয়র নেতাদের উদ্দেশ করে তিনি বলেন, আমাদের কর্মসূচি দেন। গ্যাস ও বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি, দেশে গুম, হত্যা, মামলা, ছোট্ট শিশুকে ধর্ষণের প্রতিবাদ করতে জনগণ আপনাদের কাছে চায়।

বিএনপির এই নেতা বলেন, প্রধানমন্ত্রী, আপনার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কি দেখে না? ছোট্ট শিশুকে যখন ধর্ষণ করা হয় আমি তো মনে করেছিলাম আপনার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পদত্যাগ করবেন। কিন্তু পদত্যাগ তো করলেন না। আইনের আওতায় আনবেন, আইনের আওতায় নামক ক্রসফায়ার করে মেরে ফেলবেন, সেটা তো বিচার হয় না। বিএনপির বহুলোককে এভাবে গুম করে, ক্রসফায়ারে হত্যা করা হয়েছে, এর বিচার একদিন বাংলার বুকে হবেই।

মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন- আয়োজক সংগঠনের সহ-সভাপতি ভিপি ইব্রাহিম, সাধারণ সম্পাদক ইসমাইল হোসেন সিরাজী, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অধ্যাপক সিরাজউদ্দিন আহমেদ, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুস সালাম আজাদ, সহ শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক বিষয়ক সম্পাদক ফরিদা মনি শহীদুল্লা, কৃষক দলের সদস্য লায়ন মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার প্রমুখ।