দিরাইয়ে শত শত পরিবার পানিবন্দি, পাননি কোন ত্রাণ সামগ্রী

একে কুদরত পাশা, সুনামগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি: 

বানের পানি প্রবেশ করতে শুরু করেছে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলা বিভিন্ন গ্রামে। উপজেলার রফিনগর, ভাটিপাড়া, রাজানগর, চরনারচন, সরমঙ্গল, করিমপুর, জগদল, তাড়ল ও কুলঞ্জ ইউনিয়নের শত শত বাড়ীতে বন্যার পানি প্রবেশ করায় দুর্বিসহ জীবন যাপন করছেন আক্রান্তরা। পানি বাড়ার সাথে সাথে নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হলেও দুর্গত মানুষের হাতে এখনো কোন ত্রাণ সামগ্রী পৌছায়নি। তবে রোববার বিকেলে জরুররী সভা করেছে দিরাই উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি।

উপজেলা ভারপ্রাপ্ত নির্বাহী কর্মকর্তা বিশ্বজিৎ দেব’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মঞ্জুর আলম চৌধুরী  ,ভাইস চেয়ারম্যান মোহন চৌধুরী,উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবর পরিকল্পনা কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান,ইউপি চেয়ারম্যান আছাব উদ্দিন সরদার,এহসান চৌধুরী,রতন কুমার দাস তালুকদার, মুজিবুর রহমান, শিবলী আহমদ বেগ,আব্দুল কুদ্দুস,শাহজাহান কাজী, উপজেলা জনস্বাস্থ্য্ প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম, দিরাই প্রেসক্লাব সভাপতি সামছুল ইসলাম সরদার খেজুর, দিরাই অনলাইন প্রেসক্লাব সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সর্দার প্রমূখ।

সভায় জানানো হয়  রফিনগর ইউনিয়নে ১০০ টি পরিবার, ভাটিপাড়ায় ৫০, রাজানগরে ৪০, চরনারচরে ৩৫, দিরাই সরমঙ্গলে ৪০, করিমপুরে ৫০, জগদলে ৪৫, তাড়ল ৫০ এবং কুলঞ্জ ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকার ৫০টি পরিবার  বন্যার পানিতে ভেসে গেছে। পানি বাড়তে থাকালে উপজেলার নিম্নাঞ্চল পানির নিচে থলিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে ।

উপজেলা চেয়ারম্যান মঞ্জুর আলম চৌধুরী বলেন, ক্ষতি গ্রস্থদের সহায়তায় উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা পরিষদ প্রস্তুত। উপজেলার প্রতিটি বিদ্যালয় এলাকার মানুষের চাহিদা অনুযায়ী আশ্রয় কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহার করা যাবে । দ্রুত ত্রাণ সামগ্রি বিতরণ শুরু হবে। তিনি যে কোন সমস্যা কন্ট্রোল রুমে জানানোর জন্য আহ্বান জানান।