নুরুল আমিন ছিলেন একজন আলোকিত মানুষ – মুহিবুর রহমান মানিক এমপি

নিজস্ব প্রতিবেদক।।  সরকারি প্রতিষ্ঠান ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য মুহিবুর রহমান মানিক এমপি বলেছেন, মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আমিন ছিলেন এ অঞ্চলের একজন আলোকিত ও ক্ষণজন্মা মানুষ। ৭৫ পরবর্তী বাংলাদেশ যখন উল্টো পথে হাঠছিলো তখন এ অঞ্চলে স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের পতাকা উড়িয়ে ছিলেন তিনি। অনেক মুক্তিযোদ্ধারা পথ হারিয়েছেন তিনি কখনো পথ হারাননি। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত জনপ্রতিনিধি, মুক্তিযোদ্ধা ও সমাজসেবক হিসেবে তিনি সমাজের উন্নয়নে কাজ করে গেছেন। এমপি মানিক বলেন, নির্লোভ এ মুক্তিযোদ্ধাকে স্বরনীয় করে রাখতে চৌকা-চরমহল্লা সড়কের নামকরণ করা হবে মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আমিন সড়ক। ঘানু উড়া নদীতে চেচান ব্রীজ নির্মাণ করা হবে। এখানে ৩ ক্ষণজন্মা চেরাগ আলীর-চে-ছানুউর রহমানের-ছা- ও নুরুল আমিনের-ন- নিয়ে ব্রীজটির নাম হবে চেছান ব্রীজ।

বৃহস্পতিবার (১৮জুলাই) বিকেলে দক্ষিণ খুরমা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান, আওয়ামী লীগ নেতা, ছাতক-দোয়ারা জনপ্রতিনিধি পরিষদের সভাপতি, ছাতক উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার, বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আমিন স্বরনে উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত স্বরণ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

উপজেলা অডিটোরিয়ামে আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক সৈয়দ আহমদের সভাপতিত্বে ও সিলেট মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের সহ-সভাপতি এম রসিদ আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত স্বরণ সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, ছাতক উপজেলা চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান, দোয়ারা উপজেলা চেয়ারম্যান ডাঃ আব্দুর রহিম, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ ইদ্রিস আলী বীর প্রতিক, মরহুম নুরুল আমিনের পুত্র জাকারিয়া আমিন জিকু, সহকারী কমিশনার (ভূমি) তাপস শীল, সিলেট জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েল, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান গিয়াস মিয়া, অধ্যক্ষ সুজাত আলী রফিক, অধ্যক্ষ মঈন উদ্দিন আহমদ।

বক্তব্য রাখেন, ইউপি চেয়ারম্যান গয়াছ আহমদ, ছাতক উপজেলার সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আনোয়ার রহমান তোতা মিয়া, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আবু শাদাত মোঃ লাহিন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান লিপি বেগম, সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদ সদস্য আব্দুস শহিদ মুহিত, আমিরুল হক চেয়ারম্যান, সাবেক চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিন, ইউপি চেয়ারম্যান আওলাদ হোসেন মাস্টার, অদুদ আলম, আখলাকুর রহমান, মুরাদ হোসেন, বিল্লাল আহমদ, আওয়ামী লীগ নেতা আফজাল হোসেন, সাব্বির হোসেন, আব্দুল খালিক, মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা, আলকাছ আলী, আজাদ মিয়া, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি এড. শাহাব উদ্দিন, উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি ওবায়দুর রউফ বাবলু, উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি আবু বকর রাজা, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুস শহিদ, উপজেলা ছাত্রলীগের আহবায়ক তাজাম্মুল হক রিপন, যুগ্ম আহবায়ক শিপলু আহমদ প্রমূখ।

সভায় ইউপি চেয়ারম্যান পীর আব্দুল খালিক রাজা, সায়েস্তা মিয়া, আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল জলিল আজাদ, লুৎফর রহমান প্রধান, চান মিয়া চৌধুরী,শামসুজ্জামান রাজা, এড. শামসুর রহমান, আপ্তাব উদ্দিন, জসিম উদ্দিন ভূঁইয়া, আব্দুল আউয়াল, সিরাজুল হক, মতিউর রহমান, মাস্টার নাসির উদ্দিন, মাফিজ আলী, নজমুল হোসেন, আবুল হাসনাত, বাবুল রায়, এড. ছায়াদুর রহমান, আরশ আলী, গিয়াস উদ্দিন, আব্দুস সালাম, আব্দুল কাদির, কৃপেশ চন্দ, মঞ্জুর আলম, এড. সিতাব আলী, এড. মনিরুজ্জামান সেলিমসহ উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।