সিলেট হাওলদারপাড়ায় প্রবাসী ও আইনজীবিদের বাসা দখল

প্রকাশিত: ৯:০৭ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ৩০, ২০১৯

সিলেট হাওলদারপাড়ায় প্রবাসী ও আইনজীবিদের বাসা দখল

এমডি মুন্না : স্টাফ রিপোর্টার।।

সিলেট মহানগরীর জালালাবাদ থানাধীন আখালিয়া এলাকার হাওলদারপাড়ায় তিন প্রবাসী ও দুই আইনজীবিদের বাসা দখলের অভিযোগ রয়েছে। ক্ষমতাসীন দলের এক প্রভাবশালী নেতার ছত্রছায়ায় বাসা দখলের এ অভিযোগ তুলেছেন বাসার মালিক সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবি ও বঙ্গবন্ধু আইনজীবি পরিষদ এর সদস্য আবদুল মোনেম চৌধুরী।

তিনি জানান, ইতিমধ্যে নিজেদের কষ্ঠার্জিত টাকায় কেনা বাসাটি উদ্ধারে প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদের সহযোগিতা চেয়েছেন।

জানা যায়- সিলেট মহানগরের জালালাবাদ থানাধীন আখালিয়া এলাকার হাওলদারপাড়ার চা বাগান রোডে ভ্রাম্মনশাসন মৌজার -৯৯ ও ১০০ দাগের ক্রয়কৃত ২৫.৭৫ শতাংশ জায়গায় টিনসেট রুম তৈরি করে ভাড়া দিয়ে আসছেন। গেল বছরের ৭ ও ১০ জানুয়ারি পৃথক সময়ে সিলেটের এক প্রভাবশালী নেতার নেতাকর্মীরা বাসার মালিকের কাছে চাঁদা দাবি করেন। এসময় বাসার মালিককে না পেয়ে ভাড়াটিয়াদের তিনদিনের মধ্যে ৫ লক্ষ টাকা দিয়ে আসতে হুমকি প্রদান করে। যদি টাকা না দেয় বাসা থেকে উচ্ছেদ করে দেওয়া হবে। পাশাপাশি ভাড়াটিয়াদের মারধর করে কিছু মালামাল ছিনতাই করে নিয়ে আসে ওই সন্ত্রাসীরা। এরপ্রেক্ষিতে গত বছরের ১৫ জানুয়ারি সিলেট মহানগর পুলিশের জালালাবাদ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলায় হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার তিনগাঁও মৃত আলীবর্দী এর ছেলে ইউসুফ আলী, ইউসুফ আলীর পুত্র আইয়ূব আলী, তৈয়ব আলী ও লালা, নগরের জালালাবাদ থানাধীন হাওলদারপাড়ার মৃত খুরশেদ আলীর ছেলে আঙ্গুর মিয়া, একই এলাকার কুদরত আলী ওরফে ডাইল এর ছেলে আতিকুর রহমান শাহীন, মকন মিয়ার ছেলে আবদুর রহিম, বাহার আলীর ছেলে আক্তার হোসেন, আনোয়ার আলীর ছেলে রাজেল ও একই এলাকার দুস্কীর মকন মিয়ার ছেলে ফারুক মিয়া ওরফে কাঠ মিস্ত্রী ফারুক আসামী করেন। মামলা নং- ১০/১৮, তারিখ- ১৫ জানুয়ারি ২০১৮ ইং।

মামলায় উল্লেখিত আসামীরা জোরপূর্বক বাসা দখল করে নেয়। মামলার প্রেক্ষিতে আওয়ামী লীগ নেতার দিকনির্দেশনায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা আদালতে মিথ্যা ও বানোয়াট প্রতিবেদন দেন বলে মামলার বাদি রেদওয়ান মাহমুদ চৌধুরী দাবি করেছেন।

তিনি মামলাটি পুরনায় তদন্তের জন্য আবেদন করলে আদালত পুলিশ ব্যুারো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)-কে নির্দেশা দেন। পিবিআইও প্রায় একই ধরনের সস্পোরক অভিযোগপত্র দাখিল করে। নিজেদের সকল ধরনের ডকুমেন্ট থাকলেও ফের বাদীর বিপক্ষে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। ফের পুনঃতদন্তের আবেদন করেন বাদী। তাঁর আবেদন এর প্রেক্ষিতে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এর তদন্ত চলমান রয়েছে। নিজেদের জায়গা থেকে দখলদারদের উচ্ছেদ করতে প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টদের প্রতি জোর আহবান জানান।

এ সংক্রান্ত আরও সংবাদ

সুরমাভিউ সর্বশেষ সংবাদ